বরিশাল নগরীর বগুরা রোডের মুন্সী গ্যারেজে পানির জন্য দীর্ঘ লাইন-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ।। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হলে আবহাওয়া অধিদপ্তর ১১ নম্বর সর্তক সংকেত জারি করে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে এমনই পরিস্থিতিতে পরেছিল বরিশাল । সারা দেশের সাথে ৩১ ঘন্টা বরিশালের মোবাইল যোগযোগ ছিল না। ছিল না বিদ্যুত ,পানি।
বরিশালে রবিবার ভোররাত ৪ টার দিকে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ভোর ছয়টার পরপরই চলে যায় মোবাইল নেটওয়ার্ক। দু’এক সময় রবির নেটোয়ার্ক পাওয়া গেলেও গ্রামীন ফোনের নেটওর্য়াক একদম বন্ধ ছিল। এরফলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে বরিশালবাসী।
সোমবার সকাল ১১ টার দিকে বরিশালে বিদ্যুৎ এসেছে। এর কিছুক্ষণ পর সংযোগ পাওয়া গেছে মোবাইল নেটওয়ার্ক। তবে ইন্টারনেট সংযোগ এসেছে প্রায় আরো এক ঘন্টা পর। তিন দিন পর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উঠেছে রোদ।

বিদ্যুৎ না থাকায় পানির সমস্যায় পরেন নগরবাসী। অনেকে দূরের পুকুর থেকে পানি সংগ্রহ করেন।
মল্লিক রোডের খান ভবনের রিজিয়া রহমান জানান,“এত দীর্ঘ সময় বিদ্যুৎ থাকবেনা তা কল্পনা করেনি”। তিনি পুলিশ ক্লাবের পুকুর থেকে টয়লেট ব্যবহারের জন্য পানি সংগ্রহ করছিলেন।
তার পাশের বাসার গৃহিনী রুমা সকাল নয়টায় জানালেন তার বাচ্চারা ঘুমিয়ে,তাই রক্ষা। জেগে উঠলেই পানির প্রয়োজন কিভাবে মিটাবেন এই নিয়ে চিন্তিত ছিলেন তিনি।
তবে ওই ভবনেরই অমিতাভ প্রতিবেশী সবাইকে জানিয়ে গেছেন,তার বাসায় পর্যাপ্ত পানি আছে। প্রয়োজন হলে তার বাসা থেকে পানি আনা যাবে । তিনি বিপদের প্রস্তুতি নিয়ে বড় ড্রামে পানি ভরে রেখেছিলেন।
সাংবাদিক মাইনুল হাসান সড়কের বাসাগুলোতেও ছিল একই অবস্থা। দুই/একটি বাসা ছাড়া সবাই বিদ্যুৎ না থাকায় পানির সংকটে ভুগছিলেন।
সকালে দীর্ঘলাইন দেখা গেছে খাবার দোকানগুলোর সামনে। পানি না থাকায় নাস্তা কিনে খেয়েছেন প্রায় সবাই।
বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার