নিহত ইমাম হোসেন ইমন-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ ॥ সহপাঠীদের সাথে বিরোধের জের ধরে প্রথমে হত্যার উদ্দেশ্যে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ফেলে ও পরে একটি ঘরে আটকে অমানুষিক নির্যাতনে ইমাম হোসেন ইমন (১৩) নামের এক স্কুল ছাত্র মারা গেছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইমন মারা যায়। সে (ইমন) জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার জাহাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ছিলো।

নিহতের বাবা উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের বাসিন্দা কৃষক নাসির উদ্দিন বেপারী জানান, তার ছেলে ইমনকে গত ৫ অক্টোরব রাতে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যায় তার বন্ধু একই গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র নুরুন্নবী। এ সময় তাদের অপর বন্ধু হাসান, সোহেল ও মুন্না উপস্থিত ছিলো। তাদের সাথে ইমনের বিরোধ দেখা দেয়ার পর নুরুন্নবী চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ইমনকে ফেলে হত্যার চেষ্টা করে। পরে অন্যরা নুরুন্নবীর বাড়িতে আহত ইমনকে আটকে রেখে অমানুষিক নির্যাতন করে।
পরেরদিন (৬ অক্টোবর দুপুরে) খবর পেয়ে ইমনকে ওই বাড়ি থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ইমনকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার রাতে ইমন মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে।

বাবুগঞ্জ থানার ওসি মো. মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, গত ১৩ অক্টোবর ইমনের পিতা নাসির উদ্দিন বেপারী বাদি হয়ে থানায় ওই চারজনের নাম উল্লেখ করে হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে সোহেল নামের এক এজাহারভূক্ত আসামিকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন।
ওসি আরও বলেন, হত্যা চেষ্টার মামলাটি এখন হত্যা মামলা হিসেবে এজাহারভূক্ত করা হবে। পাশাপাশি ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান চলছে বলেও তিনি (ওসি) উল্লেখ করেন।

বরিশাল নিউজ/শামীম