নারী নির্যাতন-প্রতীকী ছবি

নারী নির্যাতন-প্রতীকী ছবি

বরিশাল নিউজ ॥ যৌতুক ও নারী নির্যাতনের মামলা করায় ১০ বছরের মেয়েসহ স্ত্রী রুমা বেগমকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার জন্য লোকজন দিয়ে তুলে নিয়ে আটক করে রাখে স্বামী মন্টু সরদার। এ সুযোগে রুমার বসবাসের ঘরটি উচ্ছেদের চেষ্ঠা করা হয়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে আটক গৃহবধূকে উদ্ধার করেছে। ঘটনাটি জেলার গৌরনদী উপজেলার পূর্ব বেজহার গ্রামের।
উজিরপুর উপজেলার দত্তেস্বর গ্রামের আব্দুল হাকিম বিশ্বাস মেয়ে রুমা বেগম (৩২) বরিশাল নিউজকে জানান, প্রায় একযুগ আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় পূর্ব বেজহার গ্রামের মৃত নুরুল হক সরদারের ছেলে মন্টু সরদারের সাথে। বর্তমানে তাদের সংসারে দশ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। রুমা বেগম আরও জানান, বিয়ের পর তার (রুমা) বাবার বাড়ির যৌতুকের টাকায় মন্টু দুবাই যায়। সেখান থেকে দেশে ফিরে মন্টু সরদার জানায় দুবাইতে সে প্রতারনার শিকার হয়েছেন। ফলে আবারো দুই লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে মন্টু সরদার। বাবার বাড়ি থেকে দ্বিতীয় দফায় যৌতুকের টাকা আনতে অপরাগতা প্রকাশ করায় মন্টু ও তার পরিবারের সদস্যরা রুমা বেগমকে প্রায়ই শারিরিক নির্যাতন করে আসছিলো। তাদের অব্যাহত নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে রুমা বেগম আদালতে যৌতুক ও নির্যাতনের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।
মামলার পর পরই মন্টু সরদার ফের দুবাই চলে যান। অতিসম্প্রতি সে (মন্টু) ছুটিতে দেশে ফিরে আদালতে মীমাংসাপত্র দিয়ে ওই মামলায় জামিন নেয়। পরবর্তীতে সন্তানসহ স্ত্রীকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করে মন্টু সরদার। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১৬ জুন দুপুরে ভাড়াটিয়া লোকজন দিয়ে মন্টু সরদার নাটকীয়ভাবে রুমা বেগম ও তার সন্তানকে স্থানীয় ইউপি ভবনে ডেকে নিয়ে আটক করে রাখেন। এ সুযোগে স্বামীর বাড়িতে রুমা বেগমের বসবাসের ঘরটি উচ্ছেদের জন্য ভাঙ্গার কাজ শুরু করা হয়। আটকের খবর পেয়ে থানা পুলিশ গৃহবধূ রুমা বেগমকে উদ্ধার করে তার বাবার পরিবারের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন।
বরিশাল নিউজ/শামীম