অজ্ঞান কৃষি কর্মকর্তার পরিবার

অজ্ঞান কৃষি কর্মকর্তার পরিবার

বরিশাল নিউজ।। বাড়িতে চেতনানাশক স্প্রে ছিটিয়ে বাবুগঞ্জে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান সুরুজকে সপরিবারে অজ্ঞান করে ফেলে রেখে গেছে দুর্বৃত্তরা। অচেতন অবস্থায় কৃষি কর্মকর্তার পরিবারের সদস্যদের ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালে। মঙ্গলবার গভীর রাতে বাবুগঞ্জ উপজেলার ক্ষুদ্রকাঠি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সাদিকুর রহমান সুরুজের ছোটভাই শাহরিয়ার রহমান বাবু জানান, মঙ্গলবার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে জানালার গ্রীল ভাঙার শব্দে তার ঘুম ভেঙে যায়। এসময় তিনি শব্দের উৎস খুঁজতে গিয়ে জানালা খুলে দেখতে পান পাশের ফ্ল্যাটে থাকা তার বড়ভাই সুরুজের বেডরুমের জানালার গ্রীল ভাঙছে ৫/৬ জন সশস্ত্র দুর্বৃত্ত। ঘটনার আকস্মিকতায় ভয়ে তিনি প্রথমে হতভম্ব হলেও পরে ‘চোর’ ‘চোর’ বলে ডাক-চিৎকার শুরু করেন। এতে কিছুক্ষণের মধ্যে প্রতিবেশি ও স্থানীয়রা বেরিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। পরে বড়ভাইয়ের ফ্ল্যাটে গিয়ে তিনি দেখতে পান উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান সুরুজ (৩৩), তার স্ত্রী সুরাইয়া রহমান (২৭) এবং দুই শিশুকন্যা সাদিয়া রহমান সাজনিন (৭) ও মাহজাবিন রহমান তাসনিম (৪) সবাই অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে।
বিমানবন্দর থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে সবাইকে উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। দুপুরে জ্ঞান ফেরার পরে সাদিকুর রহমান সুরুজ জানান, রাত সাড়ে ৯ টার দিকে তিনি বাড়ির ভেতরে একটা ঝাঁঝালো গন্ধ পান। এর কিছুক্ষণ পরেই তার পরিবারের সবা অচেতন হয়ে পরেন।
ওই কর্মকর্তা বলেন, যদি দুর্বৃত্তরা চুরির উদ্দেশ্যেই আসতো তবে জানালার গ্রীল না কেটে বরং সহজেই কলাপসিবল গেটের একটি তালা ভেঙে বিল্ডিংয়ের সামনে রাখা দুই ভাইয়ের দুটি পালসার মোটরসাইকেল নিয়ে যেতে পারতো বলে নিজের ধারণার স্বপক্ষে যুক্তি দেখান সুরুজ। বিমানবন্দর থানার ওসি মাহাবুব-উল-আলম জানান, ঘটনার প্রাথমিক আলামত পর্যালোচনা করে ধারণা করা হচ্ছে, জানালা দিয়ে কেউ চেতনা নাশক স্প্রে প্রয়োগ করার কারণে তারা অচেতন হয়ে পড়েন। ঘটনার মোটিভ স্পষ্ট নয়। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান সুরুজ।

বরিশাল নিউজ/মুন্না