বরিশাল নিউজ।। ঢাকা থেকে লি‌বিয়া ও ইউরোপে মানবপাচারকারী চ‌ক্রের অন্যতম সদস্য র‌ফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার ক‌রেছে র‌্যাব-৮।

র‌ফিকুল ইসলাম টেলিকম ব্যবসার আড়ালে অবৈধভাবে মানবপাচারের দালাল হিসেবে কাজ করতেন বলে জানায় র‌্যাব। মো. হাকিম নামে এক লিবিয়াপ্রবাসীর সহযোগিতায় তিনি এ কাজ করতেন বলে র‌্যাবের কাছে স্বীকার করেছে।

গাজীপুর জেলার রাজাবা‌ড়ি বাজার থেকে শুক্রবার রাতে র‌ফিকুল‌কে গ্রেফতার করার পর শনিবার বেলা সা‌ড়ে ১১টায় ব‌রিশাল নগরের রুপাতলীতে র‌্যাব-৮ কার্যাল‌য়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। সেখানে কথা বলেন র‌্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক খান স‌জিবুল ইসলাম।

রফিকুলের বাড়ী দিনাজপুর জেলার কাহা‌রোল থানার কু‌শো‌ট এলাকার । তিনি ২০০৭ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত প্রায় ১০ বছর সিঙ্গাপু‌রে ছিলেন। দে‌শে ফি‌রে গাজীপু‌রে গ্রামীণ টে‌লিক‌ম নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে সেখানে ব্যবসার আড়া‌লে অ‌বৈধভা‌বে বি‌দে‌শে মানবপাচার চ‌ক্রের দালাল হ‌য়ে কাজ কর‌তেন।

র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ইউরোপে যাওয়ার সময় গত ১০ মে তিউনিসিয়া উপকূলে ভূমধ্যসাগ‌রে নৌকাডু‌বি‌তে ৩৭ বাংলা‌দেশি ‘নিখোঁজ’ হওয়ার যে ঘটনা ঘটে, সেই বাংলাদেশিদের এভাবে পাচারের সঙ্গে রফিকুলও জ‌ড়িত। ধারণা করা হচ্ছে, নিখোঁজ সবাই প্রাণ হারিয়েছেন।

মানবপাচারে রফিকুলের সম্পৃক্ততার বিষয়টি তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানায়, রফিকুল সিঙ্গাপুরে যাওয়ার আগে দিনাজপুরে দুঃসম্পর্কের চাচা মো. হাকিমের (৪৫) সঙ্গে পরিচিত হন। হাকিম এখন লিবিয়াপ্রবাসী। তার সঙ্গে যোজসাজশে অবৈধপথে বিদেশে পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে রফিকুল দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে নানাজনের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে জমা করতেন। পরে তা হাকিমের নির্দেশে বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে পাঠাতেন। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমেও টাকা আদায় ও পাঠানোর লেনদেন করতেন রফিকুল। বিষয়টি র‌্যাবের কা‌ছে স্বীকারও ক‌রে‌ছেন তিনি ।

এই প্রলোভনে টাকা নেওয়ার ধারাবাহিকতায়ই শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার নলতা এলাকার ইয়ার মোহাম্মদ খানের ছেলে মো. রাজিবের (২৫) কাছ থেকে এক লাখ ৭০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন রফিকুল। রাজিবকে লিবিয়া হয়ে ইউরোপে পৌঁছে দেওয়ার প্রলোভন দেখানো হয়। কিন্তু ১০ মে ভূমধ্যসাগ‌রে নৌকাডু‌বির ঘটনায় প্রাণ হারান রাজিব।

র‌্যাব-৮ এর উপ-অধিনায়ক খান স‌জিবুল ইসলাম বলেন, অবৈধপথে বিদেশে পাঠানোর নামে প্রতারক চক্র বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জনের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়। এসব পরিবার এখন নিঃস্ব।

রফিকুলকে নিয়ে মানবপাচারে জড়িত ওই চক্রের চারজনকে গ্রেফতার করা হলো বলে জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
বরিশাল নিউজ/প্রেসরিলিজ