আবরার ফাহাদ

বরিশাল নিউজ ডেস্ক।। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা মামলার বিচার দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে হবে।
তিনি আজ বুধবার আবরার হত্যার অভিযোগপত্র দাখিলের পর সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান।
আনিসুল হক বলেন, সব আইনি বাধ্যবাধকতা শেষ করে আবরার হত্যা মামলার বিচার দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে।

আইনমন্ত্রী বলেন, এ মামলা বিচারিক আদালতে আসার পরই যেন কার্যক্রম শুরু করা যায় এজন্য একটা প্রসিকিউশন টিম ঠিক করে রাখা হয়েছে।
তিনি বলেন, অভিযোগপত্র দাখিলের পর কিছু ফরমালিটিজ রয়েছে। ফরমালিটিজগুলো যত শিগগির সম্ভব শেষ করে আগামী সোমবারের মধ্যে প্রসিকিউশন টিমকে এ দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের প্রথম সময়টা হচ্ছে ৯০ দিন, তারপর সময় দেয়া হয় ৩০ দিন। মোট ১২০ দিনের মধ্যে বিচারকাজ শেষ করতে না পারলে তৃতীয়বার ১৫ দিন সময় পাবে। অর্থৎ মোট ১৩৫ দিনে বিচারকাজ শেষ করতে হবে।

২৫ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট

এদিকে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে আজ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ২৫ জনের মধ্যে ১১ জন আবরারকে হত্যায় সরাসরি অংশ নেয়। সংশ্লিষ্ট বাকি ১৪ জনকে অভিযোগপত্রে আসামি করা হয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান আজ বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে এই অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পুলিশের প্রসিকিউশন বিভাগের অতিরিক্ত উপ কমিশনার জসিম উদ্দীন জানান, অভিযোগপত্রে মোট ২১টি আলামত, ৮টি জব্দ তালিকা যুক্ত করা হয়েছে।
বুয়েটের শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ও তড়িৎ কৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরারকে গত ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের হলের এক কক্ষে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরদিন আবরারের বাবা ১৯ শিক্ষার্থীকে আসামি করে রাজধানীর চকবাজার থানায় মামলা করেন।
অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে চারজন পলাতক। ২১ জনকে ইতিমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে।
অভিযোগপত্রে মোট ৩১ জনকে সাক্ষী রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যে বাদীপক্ষের ৬ জন ছাড়াও বুয়েটের সাতজন শিক্ষক, ১৩ জন শিক্ষার্থী এবং ৫ জন কর্মচারী রয়েছেন।
এ মামলায় আটজন আসামি ইতোমধ্যে আদালতে দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
-বাসস