শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে

বরিশাল নিউজ।। রোগীর আগে লিফটে উঠতে না পেরে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে মেহেদী হাসান রানা নামে এক কর্মচারীকে বেধড়ক পিটিয়েছে দুই ইন্টার্ন ডাক্তার । হাসপাতালের তৃতীয় তলায় মেডিসিন ব্লকে এই ঘটনা ঘটে। হামলায় আহত ওই কর্মচারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
আহত মেহেদী হাসান শেবাচিম হাসপাতালের সরদার মো. ইউনুস খান এর ছেলে এবং হাসপাতালের জরুরী বিভাগের অতিরিক্ত কর্মচারী হিসেবে কর্মরত।

আহত মেহেদী জানান, রবিবার ‘ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষের ঘটনায় আহতরা দুপুর থেকেই শেবাচিমে আসতে শুরু করে। এজন্য জরুরী বিভাগে রোগীর চাপও বেড়ে যায়। অসুস্থ রোগীদের ট্রলিতে করে ওয়ার্ডে পৌছে দেয়ার কাজ করছিলেন তিনি।

মেহেদী জানান, গুলিবিদ্ধ রোগী ওয়ার্ডে দ্রুত পৌছে দেয়ার জন্য লিফটে ওঠান। এসময় রোগীর ভিজিটর যারা তাদের সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠতে বলেন তিনি। তখন লিফটের অপেক্ষায় ছিলেন দুই যুবক ও দুই তরুনী। তাদের আগে রোগী ওপরে ওঠার কথা বলতেই ক্ষেপে যান ওই দুই যুবক। তখন তারা দু’জন নিজেদের ইন্টার্ন ডক্টর বলে পরিচয় দেয়। এমনকি রোগী আটকে তারা চারজনই লিফটে উপরে উঠে যায় এবং ট্রলি চালক মেহেদীকে পরদিন হাসপাতাল পরিচালকের কক্ষে দেখা করতে বলে চলে যায়।

মেহেদী অভিযোগ করেন ওয়ার্ডে রোগী নামিয়ে দিয়ে তৃতীয় তলায় মেডিসিন ব্লকে লিফটের জন্য অপেক্ষা করছিলেন তারা। ঠিক সেই মুহুর্তে ইন্টার্ন ডক্টর পরিচয় দেয়া ওই দুই যুবক পেছন থেকে এসেই মেহেদীর উপর হামলা চালায়। সেখানে উপস্থিত মানুষের সামনে মেহেদীকে মারধর করে এবং মাথা দেয়ালের সাথে ধাক্কা দেয়। এসময় সেখানে রোগী নিয়ে আসা পুলিশের এক সদস্য তাদের বাঁধা দিলে তাকেও লাঞ্চিত করে তারা। এক পর্যায় পুলিশ সদস্য তার পা জড়িয়ে ধরে মেহেদীকে রক্ষা করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দুই যুবকের নাম কাজী রেদোয়ান আহম্মেদ রিজভী এবং উৎপল। এদের মধ্যে কাজী রেদোয়ান আহম্মেদ রিজভী বঙ্গবন্ধু ক্লাবের প্রোগ্রামার। অপরজনও ওই ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত বলে জানা গেছে। ক্লাবটির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এর আগেও এ ধরনের অভিযোগের কারনে ক্লাব সংশ্লিষ্টরা অতিষ্ঠ। কিন্ত বঙ্গবন্ধু ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ততার কারনে তাদের বিরুদ্ধে কেউ কোন কথা বলার সাহস পাচ্ছে না।

ঘটনার পর পরই হাসপাতালে কর্মরত সিটিএসবির কর্মকর্তারা হাসপাতাল পরিচালককে বিষয়টি অবগত করেন। এসময় পরিচালক এ বিষয়ে সোমবার ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান। কিন্তু ব্যবস্থাতো দূরের কথা,উল্টো পরিচালক বলেন, রোগীর আগে ওই দু’জনকে লিফটে যেতে দিলে কি আর এমন সমস্যা হতো। তবে কেউ অভিযোগ দিলে ওই দু’জনকে ডেকে জিজ্ঞাসা করা হবে বলে জানান তিনি।
বরিশাল নিউজ/স্টাফ রিপোর্টার[/fusion_text][/fusion_builder_column][/fusion_builder_row][/fusion_builder_container]