ইলশে গুড়ি বৃষ্টি-প্রতীকী ছবি

ইলশে গুড়ি বৃষ্টি-প্রতীকী ছবি

শামীম আহমেদ ॥ বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলে সকাল থেকেই টানা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। কখনো গুড়ি গুড়ি, কখনো মাঝারি আকারে এ বৃষ্টিপাতের মধ্যেই সাধারণ মানুষ সেরেছেন নিজেদের দৈনন্দিন কাজকর্ম।

আধাবেলা হরতাল থাকলেও রবিবার নগরীর দোকান-পাট খোলার পাশাপাশি অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজও খুলেছে।
বৃষ্টির কারনে সড়কের কোথাও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি না হলেও ভাঙ্গা সড়কগুলোর খানাখন্দে জমেছে পানি। ফলে পায়ে হেটে যাওয়া লোকজনকে পোহাতে হয়েছে ভোগান্তি।

নদ-নদীর পানি স্বাভাবিকের থেকে কিছুটা বাড়লেও তেমন কোথাও প্লাবনের খবর পাওয়া যায়নি। পাশাপাশি নদী বন্দর থেকে যথাসময়ে নৌযান এবং বাস টার্মিনাল থেকে পরিবহনগুলো যাত্রীদের নিয়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে আসা যাওয়া করছে।

বরিশাল আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়া পর্যবেক্ষক আবদুর রহমান বরিশাল নিউজকে জানান, বরিশাল বিভাগে মৌসুমী বায়ুর প্রভাব সক্রিয় রয়েছে। আর এ সময়টায় মৌসুমী বায়প্রভাবেই বৃষ্টিপাত হচ্ছে। যা আরো কয়েকদিন থাকবে। তারপর কমে গিয়ে আবারো শুরু হবে।

এ সময়টাতে সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর এবং নদী বন্দরগুলোতে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত রয়েছে।

আবহাওয়া কর্মকর্তা বলেন, আজ সকাল ৯ টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় গড়ে ৫০ দশমিক ৮ মিলিলিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টির কারনে গত কয়েক দিনের থেকে তাপমাত্রাও কিছুটা কমেছে।

এদিকে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস জানান, এ ধরনের বৃষ্টিকেই মূলত ইলশে গুড়িবৃষ্টি বলা হয়। বৃষ্টি ও আবহাওয়াটা পুরোপুরি ইলিশের জন্য উপযোগী। এ সময়টায় জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ার কথা, মেঘনাসহ কিছু কিছু নদীতে ইলিশ ধরাও পড়ছে। তবে বৃষ্টি আরো কয়েকদিন থাকলে নদ-নদীতে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যার প্রভাব বাজারেও দেখা যাবে।

তবে এখন পর্যন্ত বরিশালের বাজারে ইলিশের দাম বাড়তি বলে জানিয়েছেন নগরীর পোর্টরোডের বেসরকারি মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ব্যবসায়ীরা।

বরিশাল নিউজ/শামীম