ব্যাটারিচালিত রিক্সা শ্রমিকদের আমরণ অনশন কমর্সূচিতে বক্তব্য রাখছেন বাসদ নেতা ডা. মনীষা চক্রবর্তী-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ।। ব্যাটারিচালিত রিক্সা শ্রমিকদের আমরণ অনশনের কর্মসূচিতে ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, “দীর্ঘদিন ধরে নিয়মনতান্ত্রিক আন্দোলন করে এসেছি। বারবার মেয়রের সাথে দেয়া করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু তিনি আমাদের সাথে দেখা পর্যন্ত করেননি।”
রিক্সা শ্রমিকদের আন্দোলনের যৌক্তিকতা এবং ধারাবাহিক আন্দোলনের কথা তুলে ধরে ডা. মনীষা আরো বলেন,পুলিশ প্রশাসনের সাথে দেখা করে সংকট সমাধানের উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেছি, কিন্তু কেউই কোন উদ্যোগ নেননি। এ অবস্থায় রিক্সা শ্রমিকদের আমরণ অনশন ছাড়া বিকল্প কোন পথ খোলা ছিল না।

এটা কোন প্রতীকী অনশন নয়

ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী হুশিয়ারি দিয়ে বলেন এটা কোন প্রতীকী অনশন নয়,এমনিতেই শ্রমিকেরা বাসাবাড়িতে অনাহারে দিন কাটাচ্ছে। সেই অনাহারে থাকাটা রাজপথে জনগণের সামনে হওয়াটাই ভালো। তিনি বলেন, শ্রমিকদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমি এই শ্রমিকদের সাথে আমরণ অনশনে অংশ নিব এবং এ কর্মসূচিতে কোন ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলে প্রশাসন এবং সিটি কর্পোরেশন দায়ী থাকবে।
নেতৃবৃন্দ শ্রমিকদের দাবি অবিলম্বে মেনে নিয়ে শ্রমিক পরিবারের সদস্যদের জীবন রক্ষার আহ্বান জানান।

 সংহতি বামদের
তাদের সাথে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন বাসদ বরিশাল জেলার আহবায়ক ইমরান হাবীব রুম্মন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি বরিশাল জেলার সভাপতি মিজানুর রহমান সেলিম, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ বরিশাল জেলার সাধারণ সম্পাদক জলিলুর রহমান, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি বরিশাল জেলার সাধারন সম্পাদক দুলাল মজুমদার, গণসংহতি আন্দোলন বরিশাল জেলার আহবায়ক দেওয়ান আব্দুর রশীদ নীলু, গণফোরাম বরিশাল জেলার সভাপতি হিরণ কুমার দাস,বাংলাদেশ নৌযান ফেডারেশন বরিশাল জেলার সভাপতি শেখ আবুল হাশেম, বাংলাদেশ হোটেল রেস্তোরা শ্রমিক ইউনিয়ন এর বরিশাল জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ বাবুল, দর্জি শ্রমিক ইউনিয়ন এর আহবায়ক তুষার সেন, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন বরিশাল জেলার আহবায়ক নবীন আহমেদ, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট বরিশাল জেলার সাধারন সম্পাদক মোজাম্মেল হক সাগর, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বরিশাল জেলার সাধারন সম্পাদক রাহুল দাস, রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা বাবুল তালুকদার, মোঃ দেলোয়ার, মোঃ সোহেল, শ্রমিক ফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, সহসভাপতি মহসিন মীর প্রমুখ।

গরীবের পেটে লাথি নয়

তারা বলেন, প্রায় দেড় মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও রিক্সা শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে কোন উদ্যোগ না নেয়াটা দু:খজনক। রিক্সা শ্রমিকদের সমস্যা সমাধান না করে উল্টো প্রায় ২ কোটি টাকা মূল্যের ব্যাটারি মটর জব্দ করাটা অমানবিক এবং কোন সভ্য দেশে এরকম গরীব মানুষের পেটে লাথি মারার এমন নজির খুঁজে পাওয়া যায়না। তাই অবিলম্বে এই শ্রমিকদের জীবন রর্ক্ষাথে কার্যকর ভুমিকা নেয়া দরকার।

বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান