নিউ ইয়র্কে সাদেক হোসেন খোকার জানাজা।

বরিশাল নিউজ ডেস্ক।। মুক্তিযুদ্ধের গেরিলা যোদ্ধা ও ঢাকার সাবেক মেয়র বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার জানাজা নিউ ইর্য়কে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজায় প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঢল নেমেছিল।

নিউ ইয়র্ক সময় সোমবার রাতে এশার নামাজের পর নিউ ইয়র্কের কুইন্সের জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে তার এই জানাজায় ইমামতি করেন খতিব মাওলানা মির্জা আবু জাফর বেগ।

উত্তেজিত বিএনপিকর্মীদের শান্ত করতে মসজিদ কমিটি ও বিএনপি নেতাদের তৎপরতা। ছবি-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতা-কর্মী ছাড়াও দলমত নির্বিশেষে প্রবাসীরা মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার জানাজায় অংশ নেন। মসজিদের প্রতিটি ফ্লোর কানায় কানায় ভরে যায়। মসজিদের আশেপাশের সড়কেও দাঁড়ায় শত শত মানুষ। নিউ ইয়র্কের আশপাশের রাজ্য থেকেও এসেছিলেন প্রবাসীরা।

জানাজার আগে মুক্তিযোদ্ধা খোকার কফিনে স্যালুট জানান সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের যুক্তরাষ্ট্র শাখার নেতারা। এ সময় জাতীয় পতাকা দিয়ে তার কফিন ঢেকে দেওয়া হয়।

স্যালুটে অংশহণকারীদের দলে ছিলেন সংগঠনের শাখার সভাপতি রাশেদ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল বারী বকুল, সহ-সভাপতি আবুল বাশার চুন্নু ও কার্যকরি সদস্য লাবলু আনসার।

খোকার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে জানাজায় এসেছিলেন মুক্তিযোদ্ধা বাবরউদ্দিন, সুরুজ্জামান ও আব্দুল মুকিত চৌধুরী।
খোকার প্রতি শ্রদ্ধা জানান ফার্স্ট সেক্রেটারি শামীম হোসেন। তিনি বক্তব্য দিতে গেলে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির কর্মীরা খোকার পাসপোর্ট নবায়ন না করার প্রতিবাদ জানান।

পরিস্থিতি হট্টগোলে রূপ নিলে বিএনপি আব্দুস সালাম, জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আহমদ চৌধুরী এবং সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন সবাইকে শান্ত থাকার অনুরোধ জানান। খোকার ছোট ছেলে ইশফাক হোসেনও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

নেতাকর্মীদের শান্ত থাকার অনুরোধ জানিয়ে ইশফাক বলেন, “আপনারা আমার বাবার জন্য যা করেছেন আমার পরিবার তা মনে রাখবে। পাসপোর্ট নবায়ন না করলেও বাবার মরদেহ দ্রুত দেশে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়ায় নিউ ইয়র্ক কনস্যুলেটের কর্মকর্তাদেরকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।”

বাংলাদেশ সময় সোমবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের বিশেষায়িত হাসপাতাল মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

তার মরদেহঢাকার উদ্দেশ্যে জেএফকে ছাড়বে স্থানীয় সময় মঙ্গলবার রাত ১১টায়। বাংলাদেশ সময় ৭ নভেম্বর সকাল ৮টায় খোকার কফিন ঢাকায় পৌঁছানোর কথা।
কফিনের সঙ্গে দেশে ফিরছেন খোকার স্ত্রী ও সন্তানেরা। শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী জুরাইন কবরস্থানে মায়ের পাশে দাফন করা হবে তাকে।
বরিশাল নিউজ/ডেস্ক নিউজ