বরিশাল নিউজ ডেস্ক।। যশোরে রবিবার রাতে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর একটি প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্ত হয়ে পানিতে পড়লে স্কোয়াড্রন র‌্যাংকের দুইজন পাইলট নিহত হন হয়েছেন।

 বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্ত : ২ পাইলট নিহত


‘আইএসপিআর-এর সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম শাম্মি বাসসকে জানান, নিহত দুই পাইলট হলেন- স্কোয়াড্রন লিডার মো. সিরাজুল ইসলাম এবং স্কোয়াড্রন লিডার এনায়েত কবির পলাশ।সিরাজুলের বাড়ি রাজবাড়ি জেলায় এবং পলাশ জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের সফিউদ্দিনের ছেলে বলে জানা গেছে। তারা বিএস মতিউর রহমান বিমানঘাটি থেকে রাতের প্রশিক্ষণে অংশ নিতে উড্ডয়ন করার পর এই দুর্ঘটনা ঘটে। ‘
তিনি বলেন, জে-৮ডব্লিও মডেলের উড়োজাহাজটি যশোরের কাছে বুক ভরা বাওড়ে বিধ্বস্ত হয়।
যশোর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের উপ-পরিচালক পরিমল কুন্ডু সোমবার দুপুরে এক ব্রিফিংয়ে জানান যশোরে বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত দুই পাইলটের ছিন্নভিন্ন দেহের অংশবিশেষ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে বিমানটির ৩৫ শতাংশের মতো উদ্ধার করা হয়েছে।
বিমান বাহিনী সূত্র জানায়, যশোরের মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটি থেকে প্রশিক্ষণ বিমানটি নিয়ে উড়ে যান স্কোয়াডন লিডার এনায়েত ও স্কোয়াডন লিডার সিরাজ। উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরই তারা টাওয়ার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান। এরপরই বিমানটি বিধ্বস্তের খবর পাওয়া যায়। খবর পেয়ে বিমান বাহিনীর সদস্যরাসহ ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তবে রাতের আঁধার ও বিরূপ আবহাওয়ার কারণে ডুবে যাওয়া বিমানের অবস্থান চিহ্নিত করতে বিলম্ব হয়। উদ্ধার অভিযানের শুরুতেই পানিতে ভাসতে থাকা বিধ্বস্ত বিমানের কিছু ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করা হয়। পরে খুলনা থেকে এসে উদ্ধার অভিযানে যোগ দেয় নৌবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। রাত প্রায় ৪টা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এরপর অভিযান স্থগিত করা হয়। সোমবার সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে নৌবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ফের এসে উদ্ধার অভিযান শুরু করে।