বরিশাল নিউজ ডেস্ক।। রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বাস চাপায় বিইউপির ছাত্র আবরার আহাম্মেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের দ্বিতীয় দিনের আন্দোলন বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে।

বিইউপির শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে আজকের মতো অবরোধ কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দেন নিরাপদ সড়ক আন্দোলন নেতা শাহরিয়ার।

এর আগে বুধবার সকালে বিইউপি শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার গেটে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলরত শিক্ষার্থীদের বোঝাতে বুধবার দুপুরে ঘটনাস্থলে যান ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম। সেখানে নিহত শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরী স্মরণে তার নামে ফুটওভার ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন তিনি। সে সময় সঙ্গে ছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, বিইউপি ভিসি জেনারেল বারি।

ফুটওভার ব্রিজের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনের পরে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে মেয়র বলেন, তোমাদের দাবিগুলোর একটি বাস্তবায়নের জন্য ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করা হলো। দ্রুততম সময়ের মধ্যে এটা বাস্তবায়ন করা হবে।

কিন্তু আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এক সঙ্গে বলে ওঠেন, দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালবে। কোনো আশ্বাস আমরা আর শুনতে চাই না। আমাদের দাবি বাস্তবায়ন হয়েছে এমন দেখতে চাই। যখন আমাদের দাবি পূরণ হবে তখন আমরা আন্দোলন ছেড়ে শ্রেণিকক্ষে ফিরে যাবো।

এদিকে বুধবার বিকেল ৪টার দিকে রাজধানীর শাহবাগে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র-সংসদের এজিএস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন।

এ সময় তিনি বলেন, প্রয়োজনে গাড়ির কাগজপত্র ও চালকের লাইসেন্স চেক করার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় চেকপোস্ট বসানো যেতে পারে।

বিইউপির ১০ শিক্ষার্থীর সঙ্গে বৈঠকে মেয়র আতিকুল

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলামের সঙ্গে দুপুরে বৈঠক করেছেন বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) সাত সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল।

বৈঠকে ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, বিইউপি উপাচার্য মেজর জেনারেল এমদাদ উল বারীসহ পরিবহন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের নেতৃত্বকারী বিইউপি শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ রহমান বলেন,” আমাদের আট দফা ও নতুন করে তিন দফা দাবি নিয়ে মেয়রের সঙ্গে আলোচনা হবে। আবরার আহাম্মেদ চৌধুরীকে বাসচাপা দেয়া চালকের ফাঁসি কার্যকর, জাবলে নূর ও সু-প্রভাত পরিবহনের সব অনুমোদন বাতিল ও ঢাকার সব হকারদের উচ্ছেদ করে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় ওভার ব্রিজ বা আন্ডারপাস নির্মাণের দাবি তোলা হবে।”

বসুন্ধরায় সড়ক অবরোধে ৮ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

এরআগে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বসুন্ধরার গেটের সামনে আন্দোলনের যোগ দিয়েছেন। বুধবার সকাল থেকে এসব শিক্ষার্থী আট দফা দাবি বাস্তবায়নে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরীর নিহতের ঘটনায় দোষী চালকের বিচার দাবিসহ আট দফা দাবি বাস্তবায়নে আন্দোলন করছেন।

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, আমেরিকান ইউনিভার্সিটি, বি ইউ পি, এম আই এস টি, সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটি, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটিসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এ আন্দোলনে যুক্ত হয়েছেন।

‘আশ্বাসের দীর্ঘশ্বাস আর না আর না’; এরপর কি আমার পালা?; ‘ওস্তাদ জোরে চালান সামনে স্টুডেন্ট’; ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’; ‘বিচার চাই’; ‘আমার ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দেব না’ এমন নানা স্লোগান লেখা ফেস্টুন-ব্যানার নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছেন।

সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ইমন সাহা বলেন, ‘গত ছয়-সাত মাস আগে দুজন শিক্ষার্থী সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে। এরপর শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করলে সরকারিভাবে নানা রকম আশ্বাস দেয়া হয়। অথচ তার বাস্তবায়ন আজও হয়নি। এ কারণে নতুন করে আমাদের আরেক ভাইয়ের প্রাণ দিতে হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সকাল ৭টার দিকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন প্রগতি সরণি এলাকায় সু-প্রভাত (ঢাকা-মেট্রো-ব-১১-৪১৩৫) বাসের চাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরী নিহত হন। তিনি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফের বড় ছেলে।
পরে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা আট দফা দাবি ঘোষণা করেন। বুধবার (২০ মার্চ) সকাল থেকেও রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্তে শিক্ষার্থীরা সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন চালিয়ে যান।