‘বরিশাল বিভাগে় ডুবে যাওয়া প্রতিরোধ কার্যক্রম’ বিষয়ে সিআইপিআরবির সংলাপ-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ।। বাংলাদেশে এক লাখ মানুষের মধ্যে প্রতিবছর পানিতে ডুবে মৃত্যুর হার ১১.৭ ভাগ। আর বরিশাল বিভাগে এই মৃত্যুর হার জাতীয় মৃত্যু হারের চেয়ে তিনগুনেরও বেশী। অর্থাৎ প্রতিবছর বরিশাল বিভাগে একলাখ মানুষের মধ্যে ৩৭.৯% জন পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করেন।
বাংলাদেশ হেলথ অ্যান্ড ইনজুরি সার্ভের ২০১৬ সালের জরিপের বরাত দিয়ে সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি ) জানিয়েছে,বরিশাল বিভাগে প্রতিবছর তিন হাজার ১৪৪ জন পানিতে ডুবে মারা যায়। সেই হিসাবে প্রতিদিন মারা যাচ্ছে নয়জন। এর বেশীর ভাগই পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু। ধান নদী খাল এর দেশ বরিশালে এই মৃত্যুরে জন্য অসচেতনতাকেও দায়ী করা হয়ে থাকে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পৃতিবীর সকল দেশকে এই বিষয়ে জাতীয় পরিকল্পনা প্রণয়নে করার পরামর্শ দিয়েছে। বিশ্বে প্রতিবছর তিন লাখ ৭২ হাজার শানুষ পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে।
পানিতে ডুবে মৃত্যুর এই মহামারী রোধ করতে ‌‌‌’ভাসা’ নামে একটি প্রকল্প গ্রহন করেছে সরকার। এই প্রকল্পের সদস্য হচ্ছে যুক্তরাজ্যের দি রয়াল ন্যাশনাল লাইফবোট ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশের সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ (সিআইপিআরবি ),অস্ট্রেলিয়ার দি র্জজ ইন্সটিটিউট ফর গ্লোবাল হেলথ। প্রকল্পে সহায়তা করছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রণালয় এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর।
বরিশালে সোমবার ‘বরিশাল বিভাগে় ডুবে যাওয়া প্রতিরোধ কার্যক্রম’ বিষয়ে আলোচনায় আইডিআরসিবি ও সিআইপিআরবি এর পরিচালক ডা.আমিনুর রহমান বলেছেন,বরগুনার তালতলি ও বেতাগী এবং পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় ভাসা নামের প্রকল্প শুরু হয়েছে। এরমধ্যে কলাপাড়ায় দুইশত,বেতাগী ও তালতলিতে একশত করে মোট চারশত আঁচল কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। আঁচল নামের এই কেন্দ্রগুলোতে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের সাঁতার শিখানো, মায়েদের সচেতনতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। সেখানে ইতোমধ্যে ১৯ হাজার শিশুকে সাঁতার শিখানো হয়েছে। তাদের টার্গেট রয়েছে ৩০ হাজার শিশুকে সাঁতার শিখানোর।
এছাড়াও স্টেকহোল্ডারদের মাঝে পানিতে ডুবে যাওয়া বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করা এবং ডুবা হ্রাসের লক্ষ্যে বিভিন্ন সেক্টরের সমন্বয়ে ফোরাম গঠনসহ বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন বরিশালের ডেপুটি ডাইরেক্টর (হেলথ) ডা.বাসুদেব কুমার দাস।
বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান