রাস্তার কুকুর !

বরিশাল নিউজ।। বরিশাল নগরীতে হঠাৎ করে কুকুর বেড়ে গেছে। কোথাও কোথাও দল বেধে চলাচল করে তারা । আবার যেভাবে পথচারীদের দিকে তাকায় তাতে ভয়ে বুক শুকিয়ে যায় । নগরীর সব রাস্তার পাশে ডাস্টবিন থাকায় কুকুরের বিচরণও অবাধ। রাতে রাস্তায় চলা দায়।
বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজে এরকম কুকুর আছে চারটি। আবার তাদের বাচ্চা আছে ১৬টি। কুকুরের ভয়ে ওই কলেজের হোস্টেলের ছাত্রীরা রাতে কোন প্রয়োজনে নিজের ভবন থেকে পাশের ভবনেওে যেতে ভয় পান। কিংবা ক্যাম্পাসের ভিতরে হাটাহাটি করতেও পারেন না । সবগুলো কুকুর তাদের ঘিরে ধরে এমনভাবে ঘেউ ঘেউ করতে থাকে যে ভয়ে প্রাণ ওষ্ঠাগত হয় অনেকের।
সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহর বাসভবনে কয়েকদিন আগে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ের সময় এই ব্যাপারে তার দৃষ্টি আকর্ষন করেন সংবাদ কর্মীরা। জবাব দিতে গিয়ে মেয়র বলেন,’কুকুর মারাতো যাবে না। আদালতের নির্দেশ রয়েছে।’ তিনি এ সময় আরো বলেন, ‘অপেক্ষা করেন, কুকুরের জন্য নদীর ওপারে খোয়ার তৈরী করবো।’
এই ব্যাপারে বরিশাল সিটি করপোরেশনের ভেটেনারি সার্জন ডা.রবিউল ইসলাম বরিশাল নিউজকে বলেন,হাইকোর্টের নির্দেশ থাকায় কুকুর মারা যাচ্ছেনা। তবে বন্ধাকরণের মাধ্যমে কুকুরের বংশবৃদ্ধি কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বংশবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে এ পর্যন্ত তারা কী করেছেন জানতে চাইলে ভেটেনারি সার্জন জানান এরজন্য তাদের কোন প্রজেক্ট নেই। ডা.রবিউল ইসলাম জানান,কোন দেশে স্ট্রিট ডগ নেই। স্ট্রিট ডগের বেলায় এই আইন কার্যকর করতে গিয়ে কুকুরের সংখ্যা বেড়েই চলেছে বলেন তিনি।
কুকুরের খোয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সার্জন বলেন, মেয়র তাকে বিষয়টি গুতুত্বের সাথে দেখতে বলেছেন। তিনি বলেন, খোয়ারে খাবার দিয়ে কুকুর আটকে রাখা কতটা সম্ভব তাও ভাববার বিষয়। কেননা কুকুরগুলো নিজেরা নিজেরা মারামারি করে আহত হবে। তখন আরো বিপদ। তারপরেও মেয়রের নির্দেশের কারণে বিষয়টি নিয়ে তারা আলোচনায় বসবেন বলে জানান।
বরিশাল নিউজ/এমএম হাসান