বরিশালে ভিন্ন কিছু দেখালেন সাব্বির-মোসাদ্দেকরা

ম্যাড়ম্যাড়ে টেস্ট ম্যাচ হয়ে গেল রোমাঞ্চকর-বরিশাল নিউজ

ম্যাড়ম্যাড়ে টেস্ট ম্যাচ হয়ে গেল রোমাঞ্চকর-বরিশাল নিউজ

তারিকুল ইসলাম, বরিশাল।।
ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে বরিশাল-রাজশাহী ম্যাচের কয়েকদিন আগে এখানে বৃষ্টি হয়েছে প্রচুর। তাই নয় বছর পর জাতীয় ক্রিকেট লিগের খেলা দেখতে আসা বরিশালের দর্শকরা গত দুই দিনে হয়েছেন হতাশ। আজও তারা এসেছেন খেলা দেখার আশায়। সবাই জানতেন ম্যাচটা চারদিনের থেকে দুইদিন হয়ে গেছে। নিরামিষ টেস্ট ম্যাচ হলেও জাতীয় দলের খেলোয়ারদের দেখার বাসনায় তাদের উপস্থিতি বেড়েছে । কিন্তু সেই দুই দিনের ম্যাড়ম্যাড়ে টেস্ট ম্যাচই যে এত রঙ বদলাবে কে জানতো?
তিতলির আগে জাতীয় লিগে হয়েছিল রান ঝড়। তিতলির প্রভাবে বরিশালের ভেজা মাঠে খেলা দুইদিন বন্ধ থাকে। কিন্তু জাতীয় লিগের রান ঝড়ের কোনো প্রভাব এখানে পড়েনি।
এবারের জাতীয় লীগে যেখানে সেঞ্চুরির ছড়াছড়ি সেখানে রাজশাহী-বরিশাল ম্যাচে হয়নি কোনো হাফ সেঞ্চুরিও! দুই দলের মধ্যে সর্ব্বোচ্চ ৩৮ রান করেছেন বরিশালের মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান নুরুজ্জামান। তৃতীয় দিনের খেলা শেষে দুই দলের আউট হওয়া ১৯ জন ব্যাটসম্যানের ১১ জনই পৌছাতে পারেননি ডাবল ফিগারে। এর মধ্যে ডাক মেরেছেন চার জন।
ম্যাচে নাটকীয়তা
এই ম্যাচটাকে একটা নাটকই বলা যায়। রানের ফুলঝুড়ি না থাকলেও ক্লাইমেক্স-এন্টি ক্লাইমেক্স ছিল ভরপুর। সকালে ব্যাটিংয়ে নেমে ১১ রানের মাথায় সাজঘরের ডাক পড়ে বরিশালের ওপেনার রাফসান আল-মাহমুদের। আউট হওয়ার আগে করেছেন ১২ বলে দুই রান। তিনিই পথ প্রদর্শক। মাঝে দুই একজন প্রতিরোধ গড়লেও আসা যাওয়ার মিছিলেই ছিলেন সবাই। দলীয় ৩১ রানে শাহরিয়ার নাফিস-সালমান হোসেন, ৬৬ রানে মোসাদ্দেক, ৬৮ রানে সোহাগ গাজি, ৮১ রানে আল-আমিন, ১১১ রানে শামসুল ইসলাম, ১১৪ রানে মনির হোসেন, ১৩৩ রানে নুরুজ্জামান আর শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে অধিনায়ক কামরুল ইসলাম রাব্বি আউট হন ১৩৩ রানেই। রাজশাহীর বোলারদের মধ্যে সর্বোচ্চ চার উইকেট পান ফরহাদ রেজা।

দুই দিন হতাশ হওয়ার পর আজও খেলা দেখতে আসেন অনেকে-বরিশাল নিউজ

দুই দিন হতাশ হওয়ার পর আজও খেলা দেখতে আসেন অনেকে-বরিশাল নিউজ

বরিশাল সর্বমোট ৪৬ ওভার মাঠে ছিল। সময়ের হিসাবে ২২০ মিনিট। তখন অনেকেই হিসেব কষতে শুরু করেন কত রানের লীড পায় রাজশাহী।
কিন্তু এর নাম ক্রিকেট। রাজশাহীর প্রথম দুই ব্যাটসম্যান ফিরে যান ছয় রানের মধ্যে। ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকী ৫ বলে ০ আর মিজানুর রহমান নয় বলেন ছয় রান করে সাজঘরে ফেরেন। এরপর তারা শুরু করেন বরিশালের ইনিংসের পুনরাবৃত্তি। দলীয় ২১ রানে ফরহাদ হোসেন, ২৩ রানে জহিরুল ইসলাম ও হামিদুল ইসলাম, ৫১ রানে ফরহাদ রেজা, ৮৪ রানে সানজামুল ইসলাম ও সাব্বির রহমান আর নবম ব্যাটসম্যান তাইজুল ইসলাম ৮৫ রানে আউট হন। দিন শেষে রাজশাহীর মুক্তার আলী ও আবদুল গাফফার অপরাজিত রয়েছেন।

তৃতীয় দিন শেষে বরিশালের লীড আট রানে।
বিস্তারিত স্কোরবোর্ড

Comments

comments

স্টাফ রিপোর্টার
স্টাফ রিপোর্টার

Latest posts by স্টাফ রিপোর্টার (see all)

২০১৮-১০-১৭T১৯:১২:৩৯+০০:০০বুধবার, অক্টোবর ১৭, ২০১৮ ৭:০৯ অপরাহ্ণ|