বধ্যভূমিতে রেস্টুরেন্ট; ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া

বধ্যভূমি ঘেষে গড়ে ওঠা রেস্টুরেন্ট উচ্ছেদের দাবিতে মানববন্ধন-বরিশাল নিউজ

বরিশাল নিউজ।। বরিশালের বধ্যভূমি ঘেষে কীর্তণখোলা নদীর পাড়ে গড়ে তোলা হচ্ছে রেস্টুরেন্ট। এ নিয়ে এখানকার বিভিন্ন মহল প্রতিক্রিয়া দেখানোর পর গত ৯ সেপ্টেম্বর ঐ স্থাপনার সব ধরণের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন।
সূত্রগুলো জানাচ্ছে, নগরীর ৩০ গোডাউন এলাকায় বধ্যভূমি ঘেষে অবস্থিত জেলা প্রশাসনের ১নং খতিয়ানের খাসজমিতে রেস্টুরেন্ট তৈরির জন্য সাংবাদিক আকতার ফারুক শাহিন সিটি কর্পোরেশনে আবেদন করেন। অনেকগুলো কঠোর শর্ত জুড়ে দিয়ে ঐ স্থাপণা তৈরির অনুমোদনও দেয় সিটি কর্পোরেশন।

সাংবাদিক আকতার ফারুক শাহিন

সাংবাদিক আকতার ফারুক শাহিন

কিন্তু জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন জমিতে স্থাপণা তৈরির অনুমোদন সিটি কর্পোরেশন কিভাবে দিল?-জানতে চেয়েছিলাম সিটি কর্পোরেশনের স্টল শাখার সুপারেন্টেন্ড মো. নুরুল ইসলামের কাছে। জবাবে তিনি বলেন,‘যেহেতু কীর্তনখোলার পাড় ঘেষে সিটি কর্পোরেশনের উন্নয়ণ কাজ চলছে, তাই আমরা বধ্যভূমির দর্শনার্থীদের কথা চিন্তা করে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার সরবরাহের জন্য অস্থায়ী স্টলের অনুমোদন দেই।’
নুরুল ইসলাম যোগ করেন,‘তিন মাস আগে সাংবাদিক আকতার ফারুক শাহিন সেখানে স্টল তোলার জন্য মেয়রের কাছে আবেদন করেন। সে সময়ই তাকে অনুমতিটি দেওয়া হয়। কিন্তু শর্ত থাকে যে, এ স্টল হবে সম্পূর্ণ অস্থায়ী। বিদ্যুৎ খরচ তার। সেখানে আসা গ্রাহকদের দায়দায়িত্বও তার। স্টলের কোনো ধরণের উচ্ছেদ বা ক্ষয়ক্ষতি হলে তিনি ক্ষতিপূরণ দাবি করতে পারবেন না।’ এইগুলোসহ আরো অনেক কঠিন শর্তে আকতার ফারুক শাহিন ওই অনুমোদন পান।

বধ্যভূমি ঘেষে গড়ে ওঠা রেস্টুরেন্ট-বরিশাল নিউজ

তবে ২৩ লাখ টাকা ব্যয়ে বধ্যভূমির ওই জায়গায় গড়ে তোলা হচ্ছে একতলা ভবন।
সেই স্থাপণা উচ্ছেদে এমাসের শুরু থেকে আন্দোলন করছেন এখানকার মুক্তিযোদ্ধা ও সংস্কৃতিজনেরা। ৫ তারিখে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দেন তারা। পরে ৮ সেপ্টেম্বর অধ্যাপক মুনতাসির মামুনের নেতৃত্বে তারা ফের দেখা করেন জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমানের সাথে

অধ্যাপক মুনতাসির মামুনের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসকের সাথে দেখা করেন সুশীল সমাজর প্রতিনিধিরা-বরিশাল নিউজ

এরই ধারাবাহিকতায় বধ্যভূমি উদ্ধার ও সংরক্ষনের দাবিতে আজ মঙ্গলবার তারা মানববন্ধন করেন। সেখানে কথা বলেন আন্দোলন সংশ্লিষ্টসহ বরিশালের সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা।

কাজল ঘোষ

আন্দোলনের নেতা কাজল ঘোষ বলেন,‘আমাদের লজ্জা যে স্বাধীনতার এত বছর পর এসেও বধ্যভূমি রক্ষা করার জন্য আমাদের আন্দোলন করতে হচ্ছে। যারা বধ্যভূমি অসম্মানের মতো এমন হীন কাজ করছে তাদের সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করা উচিত। যাতে এমন কাজ কেউ আর কখনো করতে না পারে।’

 

সৈয়দ দুলাল

সংস্কৃতিজন সৈয়দ দুলাল বলেন,‘আমরা শুনেছি ওই রেস্টুরেন্টের মালিক যুগান্তরের ব্যুরো চীফ আকতার ফারুক শাহিন। তিনি যতই প্রভাবশালী হোন না কেন, তার এই কর্মকান্ড মেনে নেওয়া যায়না। তাই আমরা সবাই একসাথে রুখে দাড়িয়েছি।’

 

 

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কমান্ডের সদস্য সচিব এহসান রাব্বি। তিনি বলেন,‘ওই জায়গায় বরিশালের মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মা এখনো ঘোরাফেরা করে। সেই আত্মার অসম্মান করার এই পায়তারা আইনি প্রক্রিয়ায় রুখে দেওয়া হোক।’

মাহবুবউদ্দিন বীর বিক্রম

বরিশাল আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট মাহবুবউদ্দিন বীর বিক্রম। তিনি বলেন,‘বধ্যভূমির পবিত্র জায়গায় রেস্টুরেন্ট তৈরি অশালীন। এর নিন্দা জানাচ্ছি।’

 

 

 

সাংবাদিক সুশান্ত ঘোষ

সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে এ কার্যক্রমে সংহতি প্রকাশ করেন সমকালের ব্যুরো প্রধান পুলক চ্যাটার্জি ও দেশ টিভির ব্যুরো প্রধান সুশান্ত ঘোষ। বক্তৃতায় সাংবাদিক হিসেবে নিজের লজ্জা হচ্ছে মন্তব্য করে সুশান্ত ঘোষ বলেন,‘যে সাংবাদিক এ কাজ করেছে, সেখানেই তার সাংবাদিকতার নৈতিক ইতি ঘটেছে। সাংবাদিকতার প্রভাব খাটিয়ে এমন কাজ করা নিন্দনীয়।’

 

 

মানবেন্দ্র বটব্যাল

মানবেন্দ্র বটব্যাল

মানববন্ধনের সভাপতি ও বধ্যভূমি সংরক্ষণ পরিষদের আহবায়ক এডভোকেট মানবেন্দ্র বটব্যাল বলেন,‘এই বধ্যভূমি পুরোপুরি উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত আমরা মাঠে আছি।’এসময় তিনি এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহবান জানান।

 

 

ঐ মানববন্ধনে একই ধরণের বক্তব্য দেন মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মোখলেছুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মানিক বীর প্রতীক, এডভোকেট এসএম ইকবালসহ অন্যরা।

বরিশাল নিউজ/হাসান শাহীনা আজমীন/শাওন

Comments

comments

২০১৮-০৯-১২T১৮:৪৭:০৮+০০:০০মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৮ ১০:৪৭ অপরাহ্ণ|